জিএসটি-র হারে বড় পরিবর্তন, স্বস্তি ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের

ডিজিটাল ডেস্ক: জিএসটি চালু হওয়ার পর থেকেই হাজারও নিয়মের গেরোয় ধোঁয়াশা। ধাপে ধাপে কর পদ্ধতি নিয়ে জটিলতা কমাতেই পণ্য ও পরিষেবা কর চালু হয়েছিল। কিন্তু আদতে দেখা যায় তা মধ্যবিত্তের কাছে জটিল হয়েই দেখা দিয়েছে। বড় প্রভাব ফেলেছে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের উপরেই। ফলত চলতি আর্থিক বর্ষের বিগত ত্রৈমাসিকে আর্থিক বৃদ্ধির হারও কমেছে। এবার এ নিয়েই বড় সিদ্ধান্ত নিল কেন্দ্র। জিএসটি কাউন্সিলের ২২তম বৈঠক শেষে আজ কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি বহু ক্ষেত্রে জিএসটি লাঘব করার ঘোষণা করলেন।

কী কী পরিবর্তন আনা হল?

ছোট ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের স্বস্তি দিয়ে জানানো হল, মাসে ১.৫ কোটি বা তার কম টার্নওভার যাঁদের, তাঁদের ক্ষেত্রে প্রতি মাসে রিটার্ন জমা না দিয়ে ত্রৈমাসিকে আয়কর জমা দিলেই হবে।

কমপোজিশন স্কিমের ক্ষেত্রে থ্রেশোল্ড বা সর্বনিম্ন সীমা ৭৫ লক্ষ টাকা থেকে বাড়িয়ে করা হল ১ কোটি টাকা। ফলে ১ কোটি টাকা টার্নওভার এরকম ছোট ব্যবসায়ীরাও কমপোজিশন স্কিমের আওতাভুক্ত হবেন। এর ফলে ইনপুট ক্রেডিট ছাড়া সাধারণ হারেই কর দিতে পারবেন তাঁরা।

কমপোজিশন স্কিমের ক্ষেত্রে করের হার ব্যবসায়ীদের জন্য ১ শতাংশ। উৎপাদনকারীদের জন্য ২ শতাংশ, এবং রেস্তরাঁগুলির জন্য হল ৫ শতাংশ। পরিষেবার ক্ষেত্রে একমাত্র রেস্তরাঁগুলিই কমপোজিশন স্কিমের আওতাভুক্ত হচ্ছে। ফলে সস্তা হবে রেস্তরাঁতে খাওয়াদাওয়া।

২৬টি পণ্যের ক্ষেত্রে জিএসটি পুনরায় বিবেচনা করে দেখা হয়েছে। খাকরা, শুকনো আম, চাপাটি ইত্যাদির ক্ষেত্রে জিএসটি ৫ শতাংশ কমানো হয়েছে।

কিছু কিছু স্টেশনারি জিনিসের ক্ষেত্রে, এবং ডিজেলের যন্ত্রাংশের ক্ষেত্রে ২৮ শতা্ংশ থেকে জিএসটি কমানো হয়েছে ১৮ শতাংশ।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *