উত্তর চব্বিশ পরগনার লাইব্রেরীর উন্নয়ন জানাতে সাংবাদিকদের মুখোমুখি মন্ত্রী জনাব সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী

অর্পিতা ঘোষ,বারাসাত : দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর পর পশ্চিমবঙ্গ সরকারের জনশিক্ষা প্রসার বিভাগের প্রাশাসনিক বৈঠক আজ বারাসাত ডিএম অফিসে অনুষ্ঠিত হল। প্রশাসনিক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী জনাব সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী,দপ্তরের প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি সুব্রত বিশ্বাস, এডিশনাল সেক্রেটারি কাজল বন্দ্যোপাধ্যায়,এডিএম প্রীতি গোয়েল,মাস এডুকেশনের ডিরেক্টর সমেত হাজরা সহ বিশিষ্টরা। এই প্রশাসনিক বৈঠকে উত্তর চব্বিশ পরগণার বিভিন্ন লাইব্রেরীর মান উন্নয়ন,নন গভর্নমেন্ট লাইব্রেরিগুলিতে বই দেওয়ার প্রস্তাব,জেলার লাইব্রেরীগুলোতে কর্মী শূন্যতা,গ্রামীণ ও স্থানীয় লাইব্রেরীর উন্নয়ন প্রভৃতি বিষয়গুলি উঠে আসে। এই বৈঠকের পর মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানান এই জেলায় প্রায় ৪২টি লাইব্রেরী কর্মীর অভাবে বন্ধ আছে তাই খুব শিগগিরই এখানে ২৩ জন নতুন কর্মী নিয়োগ হবে। বর্তমানে ৮৪টি লাইব্রেরিতে এই দফতর কম্পিউটার দিয়েছে ভবিষ্যতে এই জেলার আরও লাইব্রেরীতে কম্পিউটার সিস্টেম চালু করে ডিজিটাল লাইব্রেরি তৈরি করার ভাবনা আছে। উত্তর চব্বিশ পরগণার প্রায় ১৫০০টি লাইব্রেরিতে পরিস্রুত পানীয় জলের ব্যবস্থা যাতে খুব শিগগিরই চালু করা যায় সেটি নিয়েও আজ বৈঠকে আলোচনা করা হয়। লাইব্রেরীর ১ কিলোমিটারের মধ্যে মাধ্যমিক/ উচ্চমাধ্যমিক যেসব বিদ্যালয়গুলি থাকবে সেই বিদ্যালয়ের সকল ছাত্রছাত্রীরা সমস্ত সাজেসন এবং রেফারেন্স বইগুলি পার্শ্ববর্তী লাইব্রেরীর থাকে মিলবে তবে ছাত্রছাত্রীদের নির্দিষ্ট সময়ে ওই বইগুলি ফেরত দিয়ে দিতে হবে এমন অভিনব উদ্যোগের কথা আজ মন্ত্রী সাংবাদিক বৈঠকে জানান । অাগামী ৩১ আগস্ট সমগ্র রাজ্যে লাইব্রেরী দিবস পালিত হবে। এ দিন প্রত্যেক জেলার লাইব্রেরীর ম্যাপ প্রকাশিত হবে এবং সেই সাথে বিনামূল্যে এই দপ্তর থেকে একটি বই প্রকাশ করা হবে যেখানে স্পেশাল স্কুলগুলির ঠিকানা, ফোন নম্বর সহ সমস্ত তথ্য বিস্তারিত মিলবে বলে জানা গেছে। ২০২০ সালের মধ্যে ১২০০ ডিজিটাল লাইব্রেরী উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলাতে তৈরি হবে এমনটাই আশ্বাস দেন মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail