Skip to Content

কাশি সংবাদ

কাশি সংবাদ

Be First!

জানা যায়নি ঠান্ডা খাবার খেলে কীভাবে কাশি বেড়ে যায়। কিন্তু তা হলেও যতদিন না সম্পূর্ণ ঠিক হচ্ছেন ততদিন ঠান্ডা খাবার এড়িয়ে চলুন। অবশ্য অনেক ডাক্তার মনে করেন ঠান্ডা খাবার বা পানীয় ফুসফুসের বাইরের স্তরকে খুব তাড়াতাড়ি শুষ্ক করে দেয়‚ ফলে সহজেই ইনফেকশন বেড়ে যায়।
যে ব্যাক্তিরা রোগে আক্রান্ত তারা রাতে বেশি খাবার খেয়ে শুলে দেখা গেছে কাশি বেড়ে যাচ্ছে। তাই কাশি হলে যতটা পারবেন অন্যান্য দিনের থেকে খাবারের পরিমাণ কম রাখুন। খাওয়া ও শোওয়ার মধ্যে যেন অন্তত দু’ঘন্টার ব্যবধান থাকে।
রাতে সঠিক ভাবে শোওয়াও খুব দরকারী | একেবারে বিছানার সঙ্গে পিঠ ঠেকিয়ে সোজা হয়ে শুলে কিন্তু কাশি বেড়ে যাবে | আসলে এইভাবে শোওয়ার ফলে সারাদিনের জমা হওয়া কফ আর সর্দি গলায় গিয়ে জমা হয় ফলে কাশি আরো বেড়ে যায় | তাই কাশি হলে এক দিকে পাশ ফিরে ঘুমোনোর চেষ্টা করুন |
ভাজা খাবার কম খাবেন : ভাজা খাবার থেকে কাশি এবং গলা খুশখুশ বাড়িয়ে দেয় | তাই কাশি হলে ভাজা খাবার এড়িয়ে চলুন |

ধূমপান এড়িয়ে চলুন : ধূমপান ব্রঙ্কাইটিস কাশি হওয়ার একটা কারণ মানা হয় | এই সময় সিগারেট খেলে গলা খুশখুশ বেড়ে যায় | এবং কাশি ঠিক হতেও সময় লাগে অনেক বেশি | এছাড়া ক্যানসার হওয়ার রিস্কও বেড়ে যায় অনেকটা | একই সঙ্গে আপনার বাড়িতে যদি আপনার সামনে কেউ নিয়মিত সিগারেট খায় সেটাও সমান ক্ষতিকারক |

কাশি হলে ক্যাফেন একেবারে এড়িয়ে চলা উচিত | বিশেষত ওই ব্যক্তিদের যাদের অ্যাসিডিটির কারণে কাশি হয় তাদের ক্যাফেন না খাওয়াই উচিত | যদিও গরম কফি খেলে কিছুক্ষণের জন্য হয়তো আরাম পাবেন | কিন্তু পরে আরো বেশি করে কাশি হবে |

কাশি হলে কেউ ছুটি নিয়ে বাড়িতে বসে থাকে না ঠিকই | কিন্তু কাশি হলে অতিরিক্ত খাটাখাটনি না করাই ভালো। তাই যতটা পারবেন এই সময় রেস্ট নিন | এবং আপনার ইমিউন সিস্টেমকে ঠিক হওয়ার সময় দিন |

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail
Previous
Next

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*