নজরুল জয়ন্তীতে সৌহার্দ্য ত্রাণ

 

“কবিতা আর দেবতা সুন্দরের প্রকাশ।তবু বলি-আমি শুধু সেই সুন্দরের হাতের বীণা আর পায়ের পদ্মফুলই দেখিনি,তার চোখে চোখভরা জলও দেখেছি।শ্মশানের পথে,গোরস্থানের পথে তাকে ক্ষুধাদীর্ণ মূর্তিতে ব্যথিত পায়ে চলে যেতে দেখেছি…”নিজের ঐতিহাসিক শেষ ভাষণে নিপীড়িত মানুষের প্রতি দায়বদ্ধতাকে চিরকাল ধর্ম-বর্ণের উপরে স্থান দিয়েছেন যিনি,সেই চিরবিদ্রোহী কবি কাজি নজরুল ইসলামের জন্মবার্ষিকীকে সামনে রেখে সামনে রেখে তাঁরই আদর্শে যদুপুর কায়স্থপাড়া অঞ্চলের ২৫টি দুঃস্থ পরিবারের প্রায় ১৩০জন মানুষের হাতে ত্রাণসামগ্রী তুলে দেন মালদার সাংস্কৃতিক সংস্থা ‘সৌহার্দ্য’।আয়োজকদের পক্ষ থেকে অসীম কর্মকার ও সিদ্ধার্থ সাহা জানান,এলাকায় সার্ভে করে রেশনকার্ডহীন পরিবারগুলির হাতেই ত্রাণ তুলে দেওয়া হলো।সৌহার্দ্য কর্ণধার কুন্তল দাস ও প্রমিতা মণ্ডল জানান,সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের ব্যয়ভার বাঁচিয়ে দুঃস্থ মানুষের হাতে এই ত্রাণ পৌঁছে দেওয়াই কবির প্রতি আমাদের শ্রদ্ধানিবেদন।অনুষ্ঠানের সম্মাননীয় অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মালদা কলেজের অধ্যাপিকা শম্পা চক্রবর্তী এবং বিশিষ্ট সাংবাদিক ও শিক্ষক রেজাউল করিম।তাঁরা বলেন,ধর্মনিরপেক্ষতা ও সাম্প্রদায়িক ভেদাভেদের বাইরে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর এই উদ্যোগে সামিল হতে পেরে তাঁরা গর্বিত।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail