Skip to Content

সামান্য পরিশ্রমে বাড়িতেই পছন্দমতো সবজি চাষ

সামান্য পরিশ্রমে বাড়িতেই পছন্দমতো সবজি চাষ

Be First!

বি এন ই ডেস্ক : শরীর-স্বাস্থ্য ভালো রাখার জন্য সবজির জন্য মূলত বাজারের উপর নির্ভরশীল।নিজে থেকে সামান্য পরিশ্রম করলে বাড়ির ছাদে, টবে পছন্দমতো সবজির চাষ করাটা খুব কঠিন নয়। শাক-সবজি হল টমাটো,শশা, পুদিনা পাতা, ধনে পাতা, থানকুঁনিমটরশুটি, কলমি শাক, লাউ, পুঁই শাক, পেঁপে, বেগুন, লঙ্কা ইত্যাদি।
সবজি চাষের উপকার : টবে সবজি চাষে বিশেষ কয়েকটি সুবিধা রয়েছে। যেমন- প্রাকৃতিক দূযোর্গ, প্রচণ্ড গরম, অতিরিক্ত বৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, ঝড়-ঝঞ্ঝার হাত থেকে টবের সবজিকে রক্ষা করা যায় স্থানান্তর করে। জাল দিয়ে ঘিরে রেখে পশু-পাখির উপদ্রব থেকে বাঁচানো যায়৷ বাড়িতে অব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের পাত্র ও সরঞ্জামের ব্যবহার করে খরচ কমিয়ে আনা যায়। প্রয়োজনের অতিরিক্ত বীজ, সার, কীটনাশক ইত্যাদি অপচয় হয় না। নিজেরা তৈরি করে জৈব সার ব্যবহার করা যায় সবজিতে। সৌন্দর্য বাড়াতে সবুজে ভরা টব সাজিয়ে রাখা যায় ঘরের বিভিন্ন জায়গায়।
চাষের পদ্ধতি : শাক-সবজির জন্য মাটি হতে হবে ঝুরঝুরে, হালকা এবং জল ধরে রাখার ক্ষমতাসম্পন্ন। মাটি চালনি দিয়ে চেলে জীবাণুমুক্ত করে নিতে হবে। দুই ভাগ বেলে দো-আঁশ মাটির সঙ্গে দুই ভাগ জৈব সার মিলিয়ে নিয়ে বীজতলার মাটি তৈরি করে নিতে হয়। মাটি যদি এঁটেল হয় তাহলে বীজের অঙ্কুরোদগমের সুবিধার জন্য একভাগ বালি মিশিয়ে হালকা করে নিতে হবে। মাটিকে শোধন করে জীবাণুমুক্ত করে নিয়ে চারাকে রোগের হাত থেকে রক্ষা করা সহজ। এক লিটার ফরমালডিহাইড শতকরা ৪০ ভাগ ৪০ লিটার জলে গুলে এই দ্রবণের ২৫ লিটার প্রতি ঘন মিটার মাটিতে কয়েক কিস্তিতে ভিজিয়ে দিতে হয়। এরপর দু’দিন চটের কাপড় দিয়ে মাটি ঢেকে রেখে পরে চট উঠিয়ে দিলে মাটি জীবাণুমুক্ত হয়ে যাবে।
মাটি হালকা ঝুরঝুরে করে টবের উপরের সমান করতে হবে। হালকাভাবে বীজ উপরদিয়ে ছড়িয়ে দিতে হবে টবের ভেতর। এরপর জৈব সার দিয়ে বীজগুলোকে ঢেকে দিতে হবে। জল দিতে হবে নিয়মিত ছোট ছোট ছিদ্রযুক্ত ঝাজরি দিয়ে। খেয়াল রাখতে হবে, জলের ঝাপটায় যাতে বীজের উপর জৈব সারের আবরণ সরে না যায়। তাই সব টবের উপর দিয়ে জল না দিয়ে তলা দিয়ে জল দেবার ব্যবস্থা করা উচিত।
রক্ষনাবেক্ষন : অনেক সময় শাক-সবজির চারা, বিভিন্ন প্রকার পাখি, পিঁপড়ে, মাকড়সা ইত্যাদি নষ্ট করে ফেলতে পারে।সেই জন্য ভালো কোন কীটনাশক পরিমাণ মত দিয়ে যাবতীয় পিঁপড়ে ও মাকড়সার আক্রমণ থেকে ফসল রক্ষা করা যায়।ও পাখির হাত থেকে ফসল বাঁচাতে হলে টবের উপর তারের বা নাইলনের জাল দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে। আগাছাগুলো নিড়ানি দিয়ে খুঁচিয়ে তুলে ফেলে দিতে হবে। টবে চারা জন্মালে চারার গোড়ায় যেন আঘাত না লাগে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail
Previous
Next

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*